মন্দারমণি সমুদ্রপ্রিয় পর্যটকদের কাছে অত‍্যন্ত প্রিয় সমুদ্রসৈকত। পশ্চিমবঙ্গের বিখ‍্যাত সমুদ্রসৈকত দীঘার পরেই মন্দারমণির স্থান। 

● অবস্থান – 

পশ্চিমবঙ্গের পূর্বমেদিনীপুর জেলার একটি জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র মন্দারমণি, বঙ্গোপসাগর উপকূলবর্তী একটি সমুদ্রসৈকত। 

ওল্ড দীঘা থেকে ২৭ কি.মি দূরে অবস্থিত মন্দারমণি সমুদ্রসৈকত। এর নিকটবর্তী  জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্রটি হল তাজপুর, যা মন্দারমণি থেকে প্রায় ১০কি.মি দূরে। 

● ইতিহাস – 

মন্দারমণি স্থানটির নাম এসেছে মন্দার গাছ বা মন্দার ফুল থেকে। ফুলগুলি স্থানবিশেষে পারিজাত ফুল নামেও পরিচিত। এটি মাদার গাছের এক বিশেষ প্রজাতি। বঙ্গোপসাগর উপকূলবর্তী ওই এলাকায় একসময় মন্দার গাছের জঙ্গল ছিল। গাছগুলি ঝড়ঝঞ্ঝা থেকে মাটিকে রক্ষা করতে পারে। মন্দার গাছের জঙ্গল অর্থাৎ মন্দারবন থেকে স্থানীয় নাম ছিল মন্দারবন অথবা মাদারবন। সেখান থেকে কালক্রমে স্থানটির নাম হয় মন্দারমণি। 

তবে সভ‍্যতার অগ্রগতি আর উন্নয়নের সঙ্গে পাল্লা দিতে না পারায় এখন আর মন্দারের জঙ্গল তো দূরের কথা মন্দার বা মাদার গাছগুলি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। থেকে গেছে মন্দারমণির ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে মাত্র।

● কী কী দেখবেন – 

যারা দীঘাকে এড়িয়ে সমুদ্রের স্বাদ নিতে চান তাদের কাছে অত‍্যন্ত প্রিয় এই মন্দারমণি সমুদ্রসৈকতটি। দীঘার নিকটবর্তী বেশ জনপ্রিয় ও ব‍্যয়বহুল সমুদ্রসৈকত মন্দারমণি। 

 প্রকৃতিপ্রেমিক বাঙালি ভ্রমণপিপাসুদের কাছে সর্বাপেক্ষা উপভোগ‍্য ভোরের মন্দারমণির সমুদ্রের সূর্যোদয়, সমুদ্র সৈকতের বালির ওপর লাল কাঁকড়ার আনাগোনা আর  সৈকতে বালির ওপরে বাঁশের ছাউনি দেওয়া দোকানে বসে সমুদ্র দেখতে দেখতে চায়ের চুমুক দেওয়া।

     কিংবা সন্ধ‍্যায় প্রিয় মানুষের সঙ্গে সমুদ্রের পাশে বসে গরম গরম মাছভাজা খেতে খেতেও উপভোগ করতে পারেন মন্দারমণির সমুদ্রসৈকতটি।

মন্দারমণি সৈকতের ৫০০মিটারের মধ‍্যে পেয়ে যাবেন লাল কাঁকড়াদের সংসার, যেটা লাল কাঁকড়ার বীচ নামেও পরিচিত। দূর থেকে ওদের সংসারের জীবনযাত্রা উপভোগ করতে পারেন, ভালো লেন্সের ক‍্যামেরায় বন্দি করতে পারেন ওদের বিশেষ মুহূর্তগুলো। কিন্তু কখনোই নিজের মজার জন‍্য ওদের বিব্রত করবেন না। 

সমুদ্রসৈকতের পাশাপাশি চলে যেতে পারেন পিছাবনী মোহনাতেও, ফিতার মতো মৃতপ্রায় পিছাবনী নদীও কিছুক্ষণের জন‍্য সঙ্গী হতে পারে আপনার। 

মন্দারমণি সৈকতের দুপাশে ১০ কি.মি দূরে রয়েছে দুটো সমুদ্র সৈকত – সাইপ্রাসে মোড়া জনপ্রিয় তাজপুর সৈকত এবং অপরদিকে ঝাউবনে ঘেরা নির্জন হরিপুর সৈকত। মন্দারমণি থেকে অটো বা টোটো নিয়ে ঘুরে আসতে পারেন যেকোনো দিকেই। 

★ মন্দারমণি ও দীঘা সংলগ্ন এলাকায় ঘোরার জন‍্য ভ্রমণ গাইডের রুট ম‍্যাপ দেখে এলাকাগুলির দূরত্ব বুঝে নিন – দর্শনীয় স্থান

● কীভাবে যাবেন – 

      পশ্চিমবঙ্গের অন‍্যতম জনপ্রিয় মন্দারমণি সমুদ্রসৈকতে ভ্রমণের জন‍্য আপনি গাড়ি, বাস ট্রেন তিনটি মাধ‍্যম‌ই পেতে পারবেন। 

৹ বাস – 

কলকাতার ধর্মতলা থেকে, হাওড়ার ধূলাগড় থেকে অথবা যেকোনো স্থানের দীঘাগামী বাস ধরে চাউলখোলা মোড়ে নামতে হবে। চাউলখোলা থেকে অটো, টোটো অথবা রিক্সা ধরে মাত্র ৪কি.মি দূরত্ব পেরিয়ে পৌঁছে যাবেন মন্দারমণি সৈকতে। 

৹ ট্রেন – 

মন্দারমণিতে কোনো রেল স্টেশন নেই। মন্দারমণি নিকটবর্তী রেলস্টেশন রামনগর ও কাঁথি। তাই হাওড়া থেকে তাম্রলিপ্ত এক্সপ্রেস অথবা কান্ডারী এক্সপ্রেস ট্রেনে রামনগর বা কাঁথিতে নেমে ওখান থেকে গাড়ি বা অটোতে পৌঁছে যাবেন মন্দারমণি সৈকতে। 

তবে, মন্দারমণি ভ্রমণের জন‍্য আপনি ব‍্যক্তিগত গাড়িও বেছে নিতে পারেন।

 ● কখন যাবেন – 

       মন্দারমণি ভ্রমণে যেকোনো সময়েই যেতে পারেন। তবে সমুদ্র তীরবর্তী এলাকা যেহেতু তুলনামূলক গরম থাকে তাই গরমকাল এবং কালবৈশাখী ঝড়ের সময় কাটিয়ে যাওয়াই ভালো। আবার গরমকালে গিয়ে গরম এড়াতে হলে এ.সি রুম ভাড়া করাই যায়। মন্দারমণি ভ্রমণে পর্যটকরা সাধারণত ভিড় জমায় সেপ্টেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত। 

আর চাকুরিজীবীদের জন‍্য মন্দারমণি তোলা থাকে শনিবার, রবিবার কিংবা কোনো ছুটির দিন। তাই ব‍্যবসায়ী মানুষেরা মন্দারমণির মনোরম উপকূলবর্তী পরিবেশ উপভোগ করার জন‍্য বেছে নিতে পারেন সপ্তাহের মাঝের দিনগুলিকে। 

● কোথায় থাকবেন – 

মন্দারমণি বীচের হোটেলগুলি তাজপুরের মতো সমুদ্র থেকে দূরে নয়, বরং সমুদ্র নিকটবর্তী। ফলে এর ভালো দিক যেমন আছে, তেমন আছে খারাপদিক‌ও। হোটেল ও রিসর্টগুলির ভাড়া মাথাপিছু প্রায় ১,৫০০ থেকে ৬,০০০টাকার মধ‍্যে। পর্যটকদের সুবিধার জন‍্য এখানে কিছু হোটেল ও রিসর্টের যোগাযোগ নম্বর দেওয়া হল – 

১) রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ মিশন

8116793234/ 8768435247

২) দিগন্ত রিসর্ট – 9903668289

৩) শঙ্খবেলা রিসর্ট – 9836573849

৪) হোটেল ময়ঙ্ক – 8926757166

৫) নিরালা হোটেল – 9933064420

৬) সাগরিকা হোমস্টে – 9732723549

৭) শান্তিনিকেতন রিসর্ট – 9475876405

৮) রিসর্ট প্রান্ততীর্থ – 9800437710

৯) সাগরসঙ্গম হোমস্টে – 7001231132

১০) Backpackers Camp – 

7980514477 / 9836505038

১১) Sher Bengal Beach Resort – 

9735841584 / 9932495959

১২) Candlewood Park Beach Resort –

      9635420140

১৩) Suncity Resort – 033 – 4025 1111

১৪) Golden Sea Queen Beach Resort

      7042424242

১৫) Sunview Resort – 9831632589

১৬) Aqua Marina Drive Inn – 

      9674210437

১৭) Resort Priya jeet – 9830030679

১৮) Hotel Royal Heritage – 9830574403

১৯) Samudra bilas Resort –        8405966777

★ হোটেলগুলি থেকে সমুদ্রের দূরত্ব ও হোটেল ভাড়া সম্পর্কে জানুন – 

● প্রয়োজনীয় সতর্কতা – 

মন্দারমণি সমুদ্রসৈকতকে আকর্ষণীয় করে তোলার জন‍্য বিভিন্ন ওয়াটার স্পোর্টস এবং প‍্যারাসাইলিং এর ব‍্যবস্থা আছে, যা বিভিন্ন সময় পর্যটকদের প্রাণঘাতীর কারণ হয়েছে। তাই এগুলো থেকে দূরে থাকাই ভালো। 

ঘুরে বেড়ানোকে উপভোগ করতে অনেকেই মদকে সঙ্গী করে নেন, যা কিনা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দূর্ঘটনা ও অসম্মানজনক পরিস্থিতির তৈরি করে। তাই মদ এবং মদ‍্যপ ব‍্যক্তিদের থেকে দূরে থাকাই ভালো। আর মদের নেশায় নয় প্রকৃতির নেশায় সমুদ্রকে উপভোগ করাই বাঞ্ছনীয়। 

মনে রাখবেন সমুদ্রের ক্ষমতা ও উদারতা দুইই বিশাল, তাই বারংবার সমুদ্রের ক্ষমা পেয়ে তার ওপর অত‍্যাচার করতে থাকলে একবারের ক্ষমতা আপনাকে ধূলিসাৎ করে দিতে পারে। তাই প্রকৃতিকে ভালোবেসে তারমতো করে তাকে উপভোগ করাই শ্রেয়।